DailyBarishalerProhor.Com | logo

৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কক্সবাজারে নতুন পথে ইয়াবা

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ৩১, ২০২০, ১১:৫০

কক্সবাজারে নতুন পথে ইয়াবা

খায়রুল আলম রফিক>>

কক্সবাজারে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ,বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড,র্যাব,পুলিশের চলমান অভিযানের কারণে, বিশেষ করে টেকনাফ এড়িয়ে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে ইয়াবা আনতে নতুন পথ ব্যবহার করা হচ্ছে। নতুন পথে মাদক পরিবহনে বাংলাদেশিদের চেয়ে বেশি ব্যবহার করা হচ্ছে রোহিঙ্গাদের। সবার কাছে পরিচিত কমলা রঙের ইয়াবা ট্যাবলেটের বদলে আনা হচ্ছে সাদা রঙের ট্যাবলেট।

মাদক চোরাকারবারের নতুন পথ বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম সীমান্ত পয়েন্ট হয়ে ইয়াবা আসছে বাংলাদেশে। কক্সবাজার এবং বান্দরবানভিত্তিক মাদক চোরাকারবারিরা মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী অঞ্চলে বসবাসকারী রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে ইয়াবার চালান সংগ্রহ করে। সেখান থেকে ইয়াবা ঢাকাসহ সারা দেশে যায় তিনটি পৃথক রুট ব্যবহার করে।

রোহিঙ্গাদের মধ্যে অনেকেই ১৯৯৫ সাল থেকে কক্সবাজারে বসবাস করছেন। তারাই এসব চালান দেশের বিভিন্ন জায়গায় পাঠাতে মূল ভূমিকা রাখেন। টেকনাফে সপ্তাহব্যাপী অবস্থানকালে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে এসব তথ্য পেয়েছে দৈনিক আমাদের কন্ঠ।

ইয়াবা চোরাচালানের নতুন পথ : স্থানীয় বাসিন্দা ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সূত্রে জানা গেছে, ৮০ শতাংশ ইয়াবা নাইক্ষ্যংছড়ি, ১০ শতাংশ টেকনাফের বিভিন্ন পয়েন্ট এবং বাকি ১০ শতাংশ ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মংডু শহরের ডেকিবুনিয়া থেকে টমব্রু সীমান্তে ইয়াবা আসে।

সেখান থেকে এগুলো চলে আসে মিয়ানমারের পাশে থাকা রোহিঙ্গা শিবিরে, যেটি মিয়ানমার-বাংলাদেশ সীমান্তের শূন্যরেখার পাশে অবস্থিত। সেখান থেকে ঘুমধুম সীমান্ত হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে নাইক্ষ্যংছড়িতে যায় ইয়াবা। নাইক্ষ্যংছড়ি উখিয়ার রোহিঙ্গা শিবির থেকে তুলনামূলকভাবে কাছে। ইয়াবার চোরাচালানগুলোর প্রায় ৭০ শতাংশ এই শিবিরে সাময়িকভাবে রাখা হয় এবং চাহিদা ও সুযোগের ওপর নির্ভর করে দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ককসবাজার জেলা পুলিশের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্মকর্তা আমাদের কন্ঠকে জানান, চোরাচালানকারীরা ইয়াবা লুকানোর জন্য শিবিরগুলোকেই নিরাপদ মনে করে।

তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গা শিবিরের ভেতরে কয়েক হাজার ছোট ছোট ঘর আছে। সবগুলো দেখতে প্রায় একই রকম। যার কারণে সুনির্দিষ্ট তথ্য না থাকলে সেখান থেকে ইয়াবা খুঁজে বের করা বেশ কঠিন। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মতে, মাদক চোরাকারবার বন্ধে তারা জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে এবং নিয়মিত অভিযান চলছে। ’নতুন ইয়াবা ট্যাবলেট দৈনিক আমাদের কন্ঠের সঙ্গে আলাপকালে একজন ইয়াবা বাহক বলেছেন যে, তারা এখন সাদা বড়িগুলো বিক্রি করছেন। সেগুলোরও বেশ চাহিদা তৈরি হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘এই বড়িগুলোর এখন রোহিঙ্গা শিবিরের ভেতরে ৫০ টাকা করে বিক্রি হয়। তবে এই দামে পেতে হলে কমপক্ষে ১০ হাজার পিসের একটি বাক্স কিনতে হবে।

শিবিরের বাইরেও এগুলো পাইকারি দামে বিক্রি হয়। টেকনাফে এর দাম ৮০ টাকা এবং কক্সবাজার সদরে ১০০ থেকে ১২০ টাকার মধ্যে। তবে তিনি এর খুচরা দাম জানাতে পারেননি। নতুন এই সাদা রঙের ট্যাবলেট ছাড়া আরও তিনটি রঙের ইয়াবা দেখা যায়। যেগুলোর দাম সাদাগুলোর চেয়েও কম।


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয় প্রধান কার্যালয়

মারীয়া কমপ্লেক্স, কাশিপুর বাজার, বরিশাল ।

মোবাইলঃ ০১৭১৬৬০৫৯৭১, ০১৫১১০৩৬৮০৯,০১৯১১১৭০৮৮৪

মেইলঃ barishalerprohor.news.bd@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Web Design & Developed By
ইঞ্জিনিয়ার বিডি নেটওয়ার্ক

প্রতিষ্ঠাতা :
মোঃ নাছিম শরীফ


উপদেষ্টা: খালিদ মাহমুদ

মেইলঃ barishaler.prohor@yahoo.com
  • মোবাইলঃ ০১৭১১০৩৬৮০৯, ০১৯১৯০৩৬৮০৯
    • সম্পাদক ও প্রকাশক : নাজমুন নাহার
    • ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোঃ রাসেল আকন
    • নির্বাহী সম্পাদক: কাজী সজল
    • বার্তা প্রধানঃ মোঃ আল আমিন হোসেন
    ডেইলি বরিশালের প্রহর কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।